রবিবার, ১৫ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৫:৩৪ পূর্বাহ্ন

সিএনজি ভাড়া নৈরাজ্যের শিকার যাত্রীরা,পদুয়ারবাজার-লালমাই-লাকসাম অনিয়ম বেশি।
প্রকাশিতঃ মঙ্গলবার ১৩ আগস্ট, ২০১৯ / ৬৯ বার দেখা

-মো. কামাল হোসেন(বিশেষ প্রতিনিধি) ঈদুল আজহাকে কেন্দ্র করে কুমিল্লা জেলার বিভিন্ন উপজলার বিভিন্ন সড়কে ঈদের আগে ও ঈদের পরে বোনাসের নামে চলছে বাড়তি ভাড়া আদায়ের নৈরাজ্য।
প্রতিবাদ করায় কোথাও কোথাও যানবাহনের চালকদের কাছে যাত্রী নাজেহাল হওয়ার অহরহ অভিযোগও পাওয়া যাচ্ছে।
সদর দক্ষিণ ও লালমাই উপজেলার বিভিন্ন সড়কে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, পদুয়ার বাজার (বিশ্বরোড) থেকে লাকসাম যেখানে প্রতিজন (সিএনজি) ৪০ টাকা ভাড়ার নিয়ম থাকলেও যাত্রীদের গুনতে হচ্ছে ৮০ থেকে ১০০ টাকা। একটু রাত হলই গুনতে হয় আরো বেশি।
পদুয়ার বাজার (বিশ্বরোড) থেকে বাগমারা বাজার যেখানে সিএনজির জনপ্রতি স্বাভাবিক ভাড়া ২০/২৫ টাকা আর এখন তার মূল্য বেড়ে দিগুণ ৪০/৫০টাকা। এই ভাবে চলছে প্রধান সড়কের মাঝে দিগুণ টাকার ভাড়া নৈরাজ্য ।
যাত্রীরা বাড়তি ভাড়া আদায়ের প্রতিবাদ করতে গিয়ে যানবাহন চালকদের কাছে নাজেহাল হচ্ছেন বলেও বিভিন্ন সূত্রে জানা যায়।
আর এ বিষয়ে যাত্রীদের সাথে যানবাহন চালকদের অকপটে কথা হচ্ছে ” যা বলছি তাই ” ভাড়া এত টাকা হলে যান, না গেলে না যান।
সড়কের বেশ কজন সিএনজি চালক বলেন, বছরে দুইটা ঈদ আর এই ঈদে যাত্রীরা যদি আমাদের ২০/৩০ টাকা বেশি না দেয় তবে আর কখন দিবে। তবে তাদের চাহিদা ২০/৩০ টাকার মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকে না। সুযোগমত যে যার মত করে ফাঁকা করছে যাত্রীদের পকেট।
অতিরিক্ত ভাড়ার বিষয়ে এক যাত্রী বলেন, আমি পদুয়ার বাজার (বিশ্বরোড) থেকে লালমাই উপজেলাধীন বাংলাবাজার রিজার্ভ সিএনজি চাইতেই ড্রাইভার বলে ৬০০ টাকা।। পরিশেষে ২৫০ টাকার ভাড়া ৫০০ টাকায় যেতে হয়েছে। অতিরিক্ত ভাড়ার বিষয়ে বেশ কজন ছাত্র -ছাত্রীদের সাথে কথা বললে তারা বলেন, আমরা সীমিত টাকা নিয়ে যাতায়াত করি, আমরা ছাত্র মানুষ বলতে গেলে পরিবার থেকে নিয়ে চলা । তার উপর অতিরিক্ত ভাড়া আদায় এই যেন মরার উপর খরার ঘাঁ।
এ বিষয়ে কতৃপক্ষের কাছে যাত্রী সাধারণের দাবী , আমরা ঈদ বোনাসের নামে ভাড়া নৈরাজ্য বন্ধ চাই।

শেয়ার করুন
এই সাইটের কোন লেখা, অডিও ও ভিডিও বিনা অনুমতিতে প্রকাশ করা বেআইনী ।
Design & Developed BY লালমাই আইটি