রবিবার, ২৬ জানুয়ারী ২০২০, ০৪:৫৮ অপরাহ্ন

ভুশ্চিতে মামলা ছাড়া ৯ ঘন্টা পুলিশ হেফাজতে যুবক; অর্থমন্ত্রীর হস্তক্ষেপে মুক্তি-লালমাই বার্তা
প্রকাশিতঃ সোমবার ২ ডিসেম্বর, ২০১৯ / ২৩০৮ বার দেখা

-অনলাইন ডেস্কঃ
কুমিল্লার লালমাই থানাধীন ভুশ্চি বাজার পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ পুলিশ পরিদর্শক তোফাজ্জল হোসেনের বিরুদ্ধে মামলা ছাড়াই মিজানুর রহমান জুয়েল নামে এক যুবককে ৯ ঘন্টা নিজের অফিসে আটক করে রাখার অভিযোগ উঠেছে। ওই যুবককে ছাড়াতে যাওয়ায় আনোয়ার হোসেন নামের আওয়ামীলীগের এক নেতাকেও পুলিশ হাজতে আটক করে রাখে। পরে অর্থমন্ত্রী আ.হ.ম মুস্তফা কামাল এমপির হস্তক্ষেপে পুলিশ আটককৃতদের মুক্তি দেয়।
প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, লালমাই থানাধীন ভুশ্চি বাজার পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ তোফাজ্জল হোসেন রবিবার সকালে ভুলইন দক্ষিণ ইউনিয়নের মেম্বার আবদুল জলিল কে ফোন করে একই ইউনিয়নের কলমিয়া গ্রামের মাষ্টার আইউব আলীর ছেলে মিজানুর রহমান জুয়েল (২৫) কে তার অফিসে নিয়ে যেতে বলে। বেলা অনুমান ১১টায় ইউপি মেম্বার জলিল নিজের মোটরসাইকেলযোগে জুয়েল কে ভুশ্চি বাজার পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রে নিলে পুলিশ পরিদর্শক তোফাজ্জল হোসেন নিজের অফিসে জুয়েল কে আটক করে রাখে। খবর পেয়ে রবিবার সন্ধ্যা পৌনে ৬টায় জুয়েলের বন্ধু একই ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের প্রচার সম্পাদক আনোয়ার হোসেন (৩০), যুবলীগ নেতা আক্তার হোসেন, শালিসদার আবুল কাশেমসহ স্থানীয় কিছু গণ্যমাণ্য পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রে যায়। জুয়েলকে আটক করার কারন জানতে চাওয়ায় পুলিশ পরিদর্শক তোফাজ্জল হোসেন ক্ষুব্ধ হয়ে আনোয়ার হোসেনকে হাজতে আটক করে। বিষয়টি জানতে পেরে লালমাই থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ আইয়ুব রবিবার সন্ধ্যা অনুমান ৭টায় তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ তোফাজ্জল কে ফোন করলে সে সবকিছু অস্বীকার করে। এরপর রাত ৮টায় অর্থমন্ত্রী আ.হ.ম মুস্তফা কামাল এমপি যুবলীগ নেতা আক্তার হোসেনের মোবাইল ফোনে তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ তোফাজ্জল হোসেনের সাথে কথা বললে পুলিশ দু’জনকে মুক্তি দেয়।
উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক মাদুসুর রহমান বলেন, জুয়েলকে ছাড়াতে যাওয়ায় পুলিশ অন্যায়ভাবে আওয়ামীলীগ নেতা আনোয়ারকে আটক করে। আমি অর্থমন্ত্রীকে ফোন করে বিষয়টি অবগত করি। পরে রাত ৮টায় মন্ত্রীর হস্তক্ষেপে আনোয়ার ও জুয়েল মুক্তি পায়।
ভুশ্চি বাজার পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ তোফাজ্জল হোসেন বলেন, ইউপি মেম্বার জলিল বেলা ১১টায় জুয়েল কে পারিবারিক একটা বিষয়ে কথা বলতে তদন্ত কেন্দ্রে নিয়ে আসে। আর আনোয়ার কে মিথ্যা কথা বলায় আটক করেছি। রাত ৮টায় বিষয়টি নিষ্পত্তি হওয়ায় দু’জনই বাড়ী চলে গেছে।

সুত্রঃ- মানব কথা২৪.কম

শেয়ার করুন
এই সাইটের কোন লেখা, অডিও ও ভিডিও বিনা অনুমতিতে প্রকাশ করা বেআইনী ।
Design & Developed BY লালমাই আইটি